কত সম্পদের মালিক বাবুল সুপ্রিয়, জানালেন কমিশনকে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বাবুল সুপ্রিয়, বহিরাগত হয়েও শাসন করেছেন বলিউডের সুর-সাম্রাজ্য। রাজনীতির ময়দানেও তার লড়াই অনন্য। ‘বড়াল’ পদবি বিদায় নিয়েছে। এখন আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তিনি। বিজেপির টিকিটে চলতি বিধানসভা নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা টালিগঞ্জে। সম্প্রতি নির্বাচন কমিশনে সম্পত্তির হিসাব দিয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়।

নির্বাচন কমিশনকে দেয়া হলফনামায় বাবুল জানিয়েছেন, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে তার আয় ১৩ লাখ ৩২ হাজার ৯৪০ টাকা। তার আগের অর্থ বছরে এই অঙ্ক ছিল ১১ লাখ ৯২ হাজার ১৮০ টাকা। স্ত্রী রচনা শর্মা সুপ্রিয় বিমানসেবিকা ছিলেন। দুই মেয়ে শর্মিলি এবং নয়না তার ওপর নির্ভরশীল বলে জানিয়েছেন গায়ক-সাংসদ বাবুল।

তিনি জানান, বর্তমানে তার হাতে আছে মাত্র ৫১ হাজার টাকা। স্ত্রীর হাতে আছে নগদ ৩৭ হাজার টাকা। বড় মেয়ে শর্মিলীর হাতেও ১৪ হাজার টাকা আছে বলে হলফনামায় উল্লেখ করা হয়েছে।
এসবিআই এবং অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের দু’টি অ্যাকাউন্টে বাবুলের নামে স্থায়ী আমানত আছে যথাক্রমে ২ লাখ ১৩ হাজার ৭৪০ টাকা এবং ২ লাখ ৩০ হাজার ১০১ টাকা। অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের আরও একটি অ্যাকাউন্টে তার নামে স্থায়ী আমানতের পরিমাণ ২ লাখ ১৫ হাজার ৬৬৮ টাকা।
এছাড়াও চারটি ব্যাঙ্কের সেভিংস অ্যাকাউন্টে তার নামে আছে যথাক্রমে ১৩ হাজার ২৪১ টাকা, ২ লাখ ৭৮ হাজার ৮৫০ টাকা, ৭ হাজার ১৫৯ টাকা এবং ৩৫ হাজার ৭৬৮ টাকা।
মিউচুয়াল ফান্ড এবং শেয়ার বাজারেও বিনিয়োগ রয়েছে তার। মিউচুয়াল ফান্ডে তিনটি ক্ষেত্রে তার বিনিয়োগ যথাক্রমে ৯৮ হাজার ৭৩৯ টাকা, ২২ হাজার ৬৬৬ টাকা, ১ লাখ ৬ হাজার ৭২৬ টাকা, ১ লাখ ৮ হাজার ৯৭৯ টাকা এবং ৩ লাখ ১৪ হাজার ৬৭৬ টাকা।

আনন্দবাজার জানিয়েছে, শেয়ারবাজারেও তার বিনিয়োগের অঙ্ক কম নয়। ৮টি সংস্থায় তার বিনিয়োগ ছাপিয়ে গেছে লক্ষাধিক টাকা। পিপিএফ অ্যাকাউন্টে আছে ৩ লাখ ৩২ হাজার ৪৭৪ টাকা। একাধিক জীবনবিমায় তিনি বিনিয়োগ করেছেন বেশ কয়েক লাখ টাকা।

৪টি গাড়ির কথাও উল্লেখ করেছেন বাবুল। সেগুলোর মধ্যে অডি কিউ ফাইভ তিনি কিনেছিলেন ৫০ লাখ ৬৯ হাজার ৩২১ টাকায়। শেভ্রোলে বিট এর দাম পড়েছিল ৪ লাখ ৯৬ হাজার ২৭৮ টাকা। হুন্দাই আই ২০ কিনেছিলেন ১০ লাখ ৭৭ হাজার ৫ টাকায়।

বাবুলের রয়্যাল এনফিল্ড থান্ডারবার্ড মোটরবাইকের দাম ১ লাখ ৫৭ হাজার টাকা। উল্লেখ করেছেন এ বছর সেকেন্ড হ্যান্ডে কেনা মারুতি সুইফটের কথাও। সেটার দাম পড়েছিল ৭৫ হাজার টাকা।

বাবুলের মালিকানায় থাকা ২০০ গ্রাম সোনার গয়নার দাম ৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা। তার স্ত্রীর ৩০০ গ্রাম সোনার গয়নার দাম ১৩ লাখ টাকা।

কৃষিজমি না থাকলেও বাবুল হলফনামায় জানিয়েছেন উত্তরাখণ্ডে ২৭০০ বর্গফুট আয়তনের তার একটি জমি আছে। ২০১৭ সালে জমিটি কেনার সময় বাজারদর ছিল ১৮ লাখ টাকা। জমিটির বর্তমান বাজারমূল্য ১৯ লাখ টাকা বলে জানানো হয়েছে।

হাওড়ায় দু’টি, আসানসোলে একটি এবং মুম্বাইয়ের লোখণ্ডওয়ালায় একটি ফ্ল্যাটের কথা উল্লেখ করেছেন বাবুল। সেগুলোর মধ্যে হাওড়ার একটি ফ্ল্যাটের মালিকানা যৌথভাবে বাবুল এবং তার স্ত্রী রচনার। কলকাতার মুকুন্দপুরে তার স্ত্রী রচনার আরও একটি ফ্ল্যাট আছে। তবে সেটির মালিকানা যৌথভাবে তার স্ত্রী রচনা এবং শাশুড়ি শুভার।

আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কে ৩টি গৃহঋণ চলছে বাবুলের নামে। তার মধ্যে প্রথম ঋণের পরিমাণ ৫৫ লাখ ৭৪ হাজার ১০০ টাকা। দ্বিতীয় ঋণ ২৮ লাখ ৯০ হাজার ১৪৯ টাকার এবং তৃতীয় ঋণ তিনি নিয়েছেন ২ লাখ ১৬ হাজার ৮৩৯ টাকার।

রাজনীতিকেই নিজের পেশা বলে উল্লেখ করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাণিজ্য শাখায় স্নাতক বাবুল। ১৯৯১ সালে স্নাতক শেষ করেন। স্ত্রী রচনা শর্মা সুপ্রিয় বর্তমানে গৃহবধূ।

২০০০ সালে ‘কাহো না পেয়ার হ্যায়’ ছবিতে। প্রথম ছবিতেই বাবুলের গানের আকাশছোঁয়া জনপ্রিয়তা। এই ছবি হৃতিক রোশনের মতো বাবুলকেও রাতারাতি তারকা করে তোলে মুম্বাইয়ের আকাশে।

অটলবিহারী বাজপেয়ী এবং নরেন্দ্র মোদির অনুরাগী বাবুল বিজেপিতে যোগ দেন ২০১৪ সালে। প্রথম লড়াইয়েই আসানসোল কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী দোলা সেনকে হারিয়ে লোকসভায় পা রাখেন বাবুল। ২০১৯ সালে পরের লোকসভা নির্বাচনে একই কেন্দ্র থেকে হারিয়ে দেন তৃণমূলের মুনমুন সেনকে।

গত ৭ বছর বিভিন্ন কেন্দ্রীয় মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন বাবুল। চলতি বিধানসভা নির্বাচনে পদ্মশিবিরের তূণীরের অন্যতম অস্ত্র তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!