কলারোয়ায় দু’সন্তানকে হত্যা করে মায়ের আত্মহত্যার ঘটনায় ৩ জনের নামে মামলা

ফারুক রাজ, কলারোয়া: সাতক্ষীরার কলারোয়ায় শিশু কন্যাকে ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনায় বিচার না পেয়ে দু’সন্তানকে হত্যা করে মায়ের আত্মহত্যার ঘটনায় শিশু নির্যাতন ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে তিনজনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে।

শনিবার (৪ এপ্রিল) রাতে আত্মহননকারী গৃহবধূ মাহফুজা খাতুনের ভাই মশিউর রহমান বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, শিশু কন্যাকে ধর্ষণের চেষ্টাকারী কলারোয়া উপজেলার পূর্ব লাঙ্গলঝাড়া গ্রামের হৃদয় গাজী, তার বাবা লাল্টু গাজী ও তার চাচা আব্দুল আজিজ ওরফে করিম গাজী।

কলারোয়া থানার ওসি মীর খায়রুল কবির জানান, মশিউর রহমান বাদী হয়ে ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন এবং আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে শনিবার রাতে তিন জনের নামে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পারিবারিক সিদ্ধান্তহীনতায় মামলা করতে দেরি হয়েছে বলে জানান ওসি।

তিনি আরো জানান, এ মামলার আসামিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সোহরাব হোসেন জানান, অবিলম্বে আসামিদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

প্রসঙ্গত, কলারোয়া উপজেলার লাঙ্গলঝাড়া গ্রামের শিমুল সরদার ও মাহফুজা দম্পতির মেয়ে মোহনা খাতুনকে(৫) চকলেট খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে গত সোমবার ধর্ষণের চেষ্টা করে প্রতিবেশি লাল্টু গাজীর ছেলে বখাটে হৃদয় হোসেন। শিমুল সরদার জীবিকার প্রয়োজনে বাইরে থাকায় স্ত্রী মাহফুজা খাতুন এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে গিয়েও বিচার না পেয়ে ছেলে মাহফুজুর রহমান (৮) ও মেয়ে মোহনা খাতুনকে (৫) শ^াসরোধ করে হত্যা করে নিজে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

এদিকে, নিহত মাহফুজা খাতুনের ফুফা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান বলেন, মা কখনো একের পর এক সন্তানকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করতে পারে না৷ এর পেছনে অন্য কোন রহস্য রয়েছে। তবে ছোট্ট শিশু মোহনাকে প্রতিবেশী লাল্টু গাজীর ছেলে হৃদয় যৌন নির্যাতন করায় মোহনা অসুস্থ হয়ে পড়েছিল। আর একারণেই মাহফুজা খাতুন ন্যায় বিচার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়িয়েছেন। কিন্তু কোন ন্যায় বিচার পায়নি৷ বরং অভিযুক্তের পরিবার থেকে বিভিন্ন ধরনের জীবননাশের হুমকি সহ্য করেছে মাহফুজা খাতুন৷

এটি আত্মহত্যা নাকি পরিকল্পিত হত্যা এর প্রকৃত কারণ উদ্ঘাটন করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শান্তির ফাঁসি দাবি করেন তিনি৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!