দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে দুর্যোগ মোকাবেলায় কাজ করছে স্টার্ট ফান্ড

ইলিয়াস হোসেন, তালা: ২০২০ সালের ২০ মে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান আঘাত হানার পর দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের লাখ লাখ মানুষের জীবন আকস্মিকভাবে থমকে দাড়ায়। ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় লাখ লাখ মানুষ। ৭০ কিলোমিটার বেড়িবাধ ভেঙে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায় আশাশুনি, শ্যামনগর, কয়রা ও পাইকগাছা উপজেলার নদী তীরবর্তী অনেক গ্রাম। জলোচ্ছ্বাসে ভাসিয়ে নিয়ে যায় ক্ষেতের ফসল, মৎস্য ঘের, গ্রামীণ অবকাঠামো এমন কি বসবাসের শেষ আশ্রয়টুকুও।

ঘূর্ণিঝড়ের পর ৮ মাস অতিক্রান্ত হলেও পরিস্থিতি এখনও স্বাভাবিক হয়নি। এখনও আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর, শ্রীউলা, কয়রা উপজেলা সদর, উত্তর বেদকাশিসহ বিস্তীর্ণ এলাকা জোয়ার-ভাটায় ভাসছে।

বাঁধের উপর আশ্রয় নেয়া রহিমা বেগম জানান, তার পরিবারের একমাত্র সম্বল ৪ শতক জমি ও বাড়িঘর হারিয়ে এখন বেড়িবাধের বাসিন্দা তিনি। ৮ মাস ধরে ৪ সন্তানকে নিয়ে বেড়ির উপরে ৫ হাত লম্বা ৩ হাত প্রস্থ তাবুতে বসবাস করছেন। ২ মাস হলো তার স্বামী চলে গেছে ইটের ভাটায়, পরিবারের জন্য ত্রাণ হিসেবে পাওয়া চাল ছাড়া আর কিছুই রেখে যেতে পারেনি। টয়লটের প্রয়োজনে সন্ধ্যা নামা পর্যন্ত রহিমা ও তার মেয়েদের অপেক্ষা করতে হয়। খাওয়ার পানি বলতে একটি নোনা জলের টিউবওয়েল। এতদিন পার হয়ে যাওয়ার পরেও ঘরে না ফিরতে পেরে রহিমা তার সন্তানদের নিয়ে দিশেহারা। রহিমার মতো শত শত পরিবার এখন দিন গুনছে কবে বাঁধ মেরামত হবে, কবে তারা বাড়ি ফিরবে, সে প্রতীক্ষায়।

৮ মাস অতিক্রান্ত হয়েছে, এনজিওগুলোর সহায়তাও প্রায় শেষ। ঠিক সেই সময় এফসিডিও ও স্টার্ট ফান্ড বাংলাদেশ এর সম্মিলিত প্রচেষ্টায় উত্তরণ, সহায়, ভূমিজ ফাউন্ডেশন ও কারিতাস বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করছে রহিমার মত পরিবাগুলোর জন্য বর্ধিত সহায়তা।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের সাইক্লোন বুলবুলের পর থেকে করোনা, আম্ফান এবং জলাবদ্ধতার জন্য এফসিডিও ও স্টার্ট ফান্ড এই অঞ্চলের মানুষের জন্য বরাদ্দ করেছে প্র্রায় ১৮ কোটি টাকা, যা দ্বারা সহায়তা পেয়েছে ১ লক্ষ ১৭ হাজার মানুষ।

স্টার্ট ফান্ড এর মূল বিশেষত্ব হলো দুর্যোগের ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই দুর্যোগ কবলিত এলাকার জন্য প্রকল্প চূড়ান্ত করা এবং ৭ দিনের মধ্যেই তাদের পার্টনার সংস্থার মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের কাছে সহায়তা পৌঁছে দেয়া।

এখানে জরিপ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে স্থানীয় জনগণের উপস্থিতির মাধ্যমে এবং সাধারণ মানুষের প্রয়োজন ও মতামতের ভিত্তিতে সহায়তার ধরণ ও উপকারভোগী নির্বাচন করা হয়। যা দ্বারা স্বল্প সময় ও সীমিত অর্থের মাধ্যমেও দুর্যোগের পরপরই ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জরুরী প্রয়োজন মেটানো সম্ভব হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *