সোমবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. BPL
  2. Breaking news
  3. অনুষ্ঠানসমূহ
  4. অর্থ বা‌ণিজ্য
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আরো নতুন নির্দেশনা সরকারের
  7. খেলা
  8. ছবির কবি
  9. দেশের খবর
  10. বিনোদন
  11. মুক্তমত
  12. রাজনীতি
  13. লিড
  14. শিক্ষা
  15. স্পট লাইট

প্রতাপনগরে ১৮০টি পরিবারের মাঝে ৫৮৯৫টি লবণ সহনশীল চারা বিতরণ

প্রতিবেদক
the editors
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২ ১:৫৪ অপরাহ্ণ

আবু ছালেহ, আশাশুনি: সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগরে কারিতাস জার্মানির অর্থায়নে ৫ হাজার ৮৯৫টি লবণ সহনশীল গাছের চারা বিতরণ করা হয়েছে।

সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় প্রতাপনগর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে কারিতাস বাংলাদেশ খুলনা অঞ্চলের আয়োজনে এসব গাছের চারা বিতরণ করা হয়।

প্রতাপনগর ইউপি চেয়ারম্যান আবু দাউদ ঢালীর সভাপতিত্বে গাছের চারা বিতরণ ও উপকারভোগীদের ওরিয়েন্টেশন কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: রাজিবুল হাসান, কারিতাস খুলনা অঞ্চলের (আইডিআরআর) প্রকল্প সমন্বয়কারী পবিত্র কুমার মন্ডল, ইউপি সদস্য ও প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ইউপি চেয়ারম্যান মো: আবু দাউদ ঢালী বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে দীর্ঘ দুই বছর প্রতাপনগর ইউনিয়ন লবণ পানিতে তলিয়ে ছিল। ফলে গাছপালা মরে গিয়ে ইউনিয়নটি বর্তমানে মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে। আমাদের যেমন টেকসই বেঁড়িবাধ দরকার তেমনি পরিবেশের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে ব্যাপক গাছ লাগানোর দরকার। কারিতাস এই প্রকল্পের মাধ্যমে যে গাছ বিতরণ করেছে তা সত্যিই আমাদের জন্য সৌভাগ্যের, তবে এই গাছ নিয়ে শুধুমাত্র লাগালেই হবে না, এর সঠিক পরিচর্যা করে একে বাঁচিয়ে তুলতে হবে।

প্রকল্প সমন্বয়কারী পবিত্র কুমার মন্ডল বলেন, পরিবার পর্যায়ে দুর্যোগের ঝুঁকি কমানো এবং পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে গাছ লাগানোর কোন বিকল্প নেই। প্রতাপনগর ইউনিয়ন একটি দুর্যোগ কবলিত এবং ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা, এখানে নদীভাঙ্গন ও জলাবদ্ধতায় গাছ-পালা মারা গিয়ে পরিবেশের বিপুল ক্ষতিসাধন হয়েছে। এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠার জন্য এবং প্রতাপনগর ইউনিয়নটিকে আগের অবস্থায় আবারো সবুজে ভরে তুলতে অবশ্যই আমাদের প্রত্যেকের উচিত বাড়িতে একটি করে হলেও গাছ লাগানো। তাহলে পরিবেশের ভারসাম্য যেমন রক্ষা পাবে তেমনি পরিবার ও সমাজ পর্যায়ে দুর্যোগের ঝুঁকিও কমে আসবে।

অনুষ্ঠানে কৃষি কর্মকর্তা মো রাজিবুল হাসান বলেন, আশাশুনি উপজেলার মধ্যে প্রতাপনগর ইউনিয়ন সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এবং দুর্যোগ কবলিত ইউনিয়ন। এখানকার মানুষ প্রায় প্রতি বছর কোনও না কোনও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে। বিগত ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাবে প্রতাপনগর ইউনিয়নের ব্যপক ক্ষতিসাধিত হয়েছে, যার প্রভাব এখনো বিদ্যমান। একসময় প্রতাপনগর ইউনিয়নে প্রচুর ধান হতো কিন্তু সেই প্রতাপনগর আজ মরুভূমি। কারিতাস বাংলাদেশ প্রতিটি পরিবারে যে গাছের চারা বিতরণ করছে তা এই এলাকার জন্য বহুল প্রত্যাশিত। তাই সকলের উচিত গাছের সঠিক পরিচর্যা ও রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে পরিবেশের সুরক্ষা এবং দুর্যোগের ক্ষতি কমিয়ে আনতে সহায়তা করা।

অনুষ্ঠানে ইউনিয়নের প্রতি ওয়ার্ডে ১টি করে মোট ৯টি প্রদর্শনী প্লট ও প্রতিটি ওয়ার্ডে ২০ টি করে মোট ১৮০টি পরিবারের মাঝে
৫ হাজার ৮৯৫ টি লবণ সহনশীল ফলজ ও বনজ (কাঠের) গাছের চারা বিতরণ করা হয়।

 

সর্বশেষ - Breaking news

আপনার জন্য নির্বাচিত
error: Content is protected !!