ভোক্তা সাধারণের খাদ্য অধিকার; প্রেক্ষাপট সাতক্ষীরা।। সুভাষ চৌধুরী

খাদ্য আমার অধিকার। মাতৃগর্ভ থেকে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এ অধিকার সবার। প্রশ্ন হলো বিশ্বের আট শত কোটি মানুষ সবাই এই অধিকার পাচ্ছেন কিনা। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ১৬ কোটি মানুষ এই অধিকার পুরোপুরি লাভ করছে কিনা সেটাই আলোচ্য বিষয়।
কারণ খাদ্যের এই অধিকারের সাথে জড়িত রয়েছে আমাদের জীবন জীবিকা স্বাস্থ্য। কথায় বলে চাষী ঠকে মাঠে, আর ভোক্তা ঠকে হাটে। এই বাস্তবতায় বলা যায়, আমাদের খাদ্য উৎপাদন কাঙ্ক্ষিত  পর্যায়ে থাকলেও তার অধিকার থেকে আমাদের বঞ্চনা কম নয়। এর পেছনে মানবসৃষ্ট একাধিক কারণের মধ্যে রয়েছে পুজিপতি ও মজুদদার আড়তদারদের কারসাজি এবং সিন্ডিকেট। এর সাথে যুক্ত হয়েছে মধ্যসত্ত্বভোগীরা। আমরা চোখের সামনে দেখতে পাবো সরকার ধান চালসহ খাদ্য শস্য সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে কিনবার নির্দেশ দিলেও স্থানীয় প্রশাসন তা কিনছে মিলার অথবা আড়তদারদের কাছ থেকে। খাদ্যমূল্যের লাগামছাড়া বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে আড়তদার ও মধ্য সত্ত্বভোগীরা। অথচ উৎপাদনকারী কৃষক তার কৃষি পণ্য পাইকারদের কাছে বিক্রি করে লাভবান হবার বদলে দেনাগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন কৃষি উপকরণ ও শ্রমমূল্য বৃদ্ধির কারণে। একই সাথে একজন ভোক্তাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। তিনি বঞ্চিত হচ্ছেন ন্যায্য মূল্য থেকে। সমাজের দরিদ্র শ্রেণির মানুষ তাদের খাদ্য চাহিদা শতভাগ পূরণ করতে পারছেন না খাদ্যদ্রব্যের লাগামছাড়া মূল্য বৃদ্ধির কারণে।

বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলাগুলোর মধ্যে সাতক্ষীরা অন্যতম। ২৪৪ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য এবং ৭৬ কিলোমিটার প্রস্থের এই জেলার জনসংখ্যা কমবেশি ২১ লাখ। প্রতিদিন প্রতিজনের ৪৪২ গ্রাম দানাদার খাদ্যের চাহিদা অনুযায়ী, এই জেলায় যে শস্যদানা উৎপাদিত হয় তা চাহিদার তুলনায় তা ঢের বেশি। সাতক্ষীরা জেলায় প্রতি বছর গড়ে এক লাখ তিরিশ হাজার মেট্রিক টনেরও বেশি সাদা জাতের মাছ উৎপাদিত হয়। দৈনিক মাথা প্রতি ৬০ গ্রাম হিসেবে বার্ষিক চাহিদা ৩৫ হাজার মেট্রিক টন। বাগদা ও গলদা চিংড়ি উৎপাদন হয় ৪০ হাজার মেট্রিক টন। আমাদের দুধের চাহিদা এক লাখ ৮১ মেট্রিক টন। উৎপাদন ১ লাখ ৯০ মেট্রিক টন। মাংসের চাহিদা প্রতিজনে প্রতিদিন ১২০ গ্রাম। উৎপাদন দশমিক ৯০ মেট্রিক টন, চাহিদা দশমিক ৮৭ মেট্রিক টন। এছাড়া ডিমের উৎপাদন ২৭ কোটি, চাহিদা ২০ কোটি। সব মিলিয়ে বলা যায় সাতক্ষীরার খাদ্য উৎপাদন আমাদের চাহিদার তুলনায় বেশি। প্রাণিজ প্রোটিন চাহিদা মেটাতে ভারতীয় গরু আসতো বাংলাদেশে। গত কয়েক বছর ধরে সাতক্ষীরায় নানা কারণে এই গরু আসছে না। পক্ষান্তরে বাড়িতে বাড়িতে মাংসের চাহিদা পূরণে গরুর খামার গড়ে উঠেছে। এ কারণে মাংসের সংকট নেই।
খাদ্য উৎপাদন চিত্র এতো ভালো হবার পরও মূল্য বৃদ্ধির কারণে এবং দুর্যোগে কৃষি, মৎস্য ও পশু সম্পদ এবং হাঁস মুরগি পালন ব্যাহত হওয়ায় উৎপাদনমাত্রা কাক্সিক্ষত পর্যায়ে যেতে পাছে না। সাম্প্রতিককালে সুপার সাইক্লোন আম্পান ও ভয়ংকর ঘূর্ণিঝড় ইয়াশের কারণে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসে সাতক্ষীরাসহ উপকূলীয় কয়েকটি জেলা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাদের মৎস্যখাত লন্ডভন্ড হয়ে যায়। একইসাথে কৃষিজ সম্পদ নষ্ট হয়ে যায়। ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের এমন ঘন ঘন দাপটে সাতক্ষীরা জেলা উপদ্রুত হয়ে পড়েছে। ফলে মানব জীবনযাত্রা ব্যাহত হওয়ায় কর্মসংস্থান হারিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। তারা না পারছেন কৃষিজমি চাষ করতে, না পারছেন মৎস্য উৎপাদন করতে। প্রায়ই এসব এলাকার পাউবো বেড়িবাঁধ ভেঙে নোনতা পানিতে একাকার হয়ে যাচ্ছে গ্রামগুলো। এর সাথে যুক্ত হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ক্ষয়ক্ষতি।
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত উপকূলীয় জনপদের আড়াই কোটি মানুষ ঝড় জলোচ্ছ্বাস ও বন্যার কারণে বাস্তুচ্যুত হয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাযাবরের মতো ছড়িয়ে পড়েছে। বর্তমান সময়েও সাতক্ষীরার আশাশুনি ও শ্যামনগর উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকার উপদ্রুত মানুষ কর্মসংস্থানের অভাবে বাড়িঘর ছেড়ে দেশের অন্য কোথাও আশ্রয় নিয়ে খুঁজে নিয়েছে নতুন পেশা। ফলে উৎপাদনে যে ঘাটতি এ অঞ্চলে এখন পর্যন্ত পরিলক্ষিত হচ্ছে তা মোকাবেলা করা সম্ভব কেবলমাত্র উঁচু করে টেকসই বেড়িবাঁধ দেওয়ার মধ্যে। এ ব্যাপারে সরকারই কার্যকর পদক্ষেপ নিলে খাদ্য উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে।
এ প্রসঙ্গে বলা দরকার যে, খুলনা জেলায় ১৬১টি জলমহাল রয়েছে। সাতক্ষীরায় রয়েছে আরও ৪০টি। এছাড়া ২০ একরের নিচে আরও ৩৪৯টি জলমহাল সাতক্ষীরা এলাকায় রয়েছে। এসব জলমহাল প্রভাবশালীরা মৎস্যজীবী সেজে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। একইসাথে বেকার হয়ে গেছে এ অঞ্চলের ৫০ হাজারেরও বেশী পেশাদার মৎস্যজীবী জেলে। বাংলাদেশে ১৪ লাখ জেলে সরকারের মৎস্যজীবী কার্ড পেয়েছেন। এর সাথে আরও যুক্ত হতে পারে কয়েক লাখ মৎস্যজীবীর নাম। এই মৎস্যজীবীরা যদি প্রাকৃতিক জলমহালগুলি ফিরে পেতেন তাহলে মৎস্য উৎপাদন বহুগুনে বৃদ্ধি পেতো।

খাদ্য উৎপাদনের সাথে ভোক্তাদের খাদ্য চাহিদার সম্পর্ক রয়েছে। এই উৎপাদনের পরও দেশের ধনিক বণিকদের আড়তদারি এবং মধ্যসত্ত্বভোগীদের দালালির কারণে ভোক্তারা তাদের নিজ অধিকার লাভ করতে পারছেন না।

খাদ্য নিরাপত্তা শুধুমাত্র উৎপাদন নয়, বরং বিষমুক্ত খাদ্য উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু করাটা জরুরী। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার করে অধিক ফলন লাভ করা গেলেও তা বিষমুক্ত নয় বলে ধরে নেওয়া যায়। ভোক্তা হিসাবে আমাদের অধিকার রয়েছে বিষমুক্ত খাবার খাওয়ার।

এজন্য কিছু উদ্যোগ যেমন বিভিন্ন ফলসম্পদে পোকামাকড় তাড়াতে কীটনাশকের বদলে ফেরোমেন ফাঁদ ব্যবহার করা হচ্ছে। অপরদিকে কম্পোস্ট সার ব্যবহার করে রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমিয়ে বিষমুক্ত খাদ্য উৎপাদন করার কাজও চলছে কমবেশী। এই প্রক্রিয়াকে দ্রুততার সাথে এগিয়ে নেওয়া দরকার। এতে ভোক্তারা তাদের অধিকার অর্জন করতে পারবেন। একইসাথে তা জনস্বাস্থ্য রক্ষায় অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। বিদেশ থেকে ফল এবং মৎস্য আমদানির বিষয়ে বলা যায়, এতে কীটপতঙ্গ, পোকামাকড় থাকে। এমনকি তা ফরমালিন দিয়ে সংরক্ষণের স্বার্থে জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে তাকালে দেখা যাবে, এখন কোন ফলজ খাদ্যে ফরমালিন আছে কিনা তা পরীক্ষা করা হয় না। শুধুমাত্র উদ্ভিদ সংঘ নিরোধ আইন অনুযায়ী নমুনা হিসাবে আমদানিকৃত ফলের কার্টুন নামিয়ে নিয়ে ছাড়পত্র দেওয়া হয়। আজ অবধি একটি কার্টুন থেকেও পরীক্ষা করে বলা হয়নি যে এতে ফরমালিন বা অন্য কোন রাসায়নিক পদার্থ রয়েছে। ফলে এটা নিশ্চিত যে, পরীক্ষা ছাড়াই এসব ফলজ সম্পদ বাংলাদেশে আমদানি হচ্ছে যা ভোক্তার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ভোক্তার এই অধিকার নিশ্চিত করতে হলে সীমান্তে রাসায়নিক পরীক্ষা জোরদার করা দরকার।

বাংলাদেশের এক জরিপে দেখা গেছে, ৪৪ শতাংশ নারী রক্তস্বল্পতায় ভোগে। ৩১ শতাংশ শিশু পুষ্টিহীনতার শিকার। এ কারণে তারা হাবাগোবা কিংবা বিকলাঙ্গ। দেড় বছরের করোনাকালে বাংলাদেশের অর্থনীতি ক্ষতির মুখে পড়েছে। এ সময় কর্মহীন হয়ে পড়ে ৮৮ শতাংশ অপ্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিক। যার মধ্যে ৮৫ শতাংশই কৃষি শ্রমিক। তারা আরও দরিদ্র হয়ে পড়ে। সরকার বিভিন্ন খাতে প্রণোদনা দিলেও কার্যত: তাদের ক্ষতি পোষানো সম্ভব হয়নি। নতুন নতুন প্রকল্প দিয়ে কর্মসৃজন করে তাদের এগিয়ে নেওয়া গেলে ভোক্তা অধিকার রক্ষার আরও সুযোগ হতে পারে।

কৃষিখাতে নারীকে আরও বেশি সংখ্যায় ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে নারী ও পুরুষের মধ্যে মজুরি বৈষম্য দূর করলে গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা বেশ বেগবান হতে পারবে। উপকূলীয় জেলাগুলোতে রয়েছে সুপেয় পানির সংকট। সুপেয় পানি সরবরাহ একটি জরুরি বিষয়। শহরে যে বোতলজাত পানি বিক্রি হচ্ছে তা উৎপাদন খরচ অপেক্ষা পাঁচগুন বেশি দামে ভোক্তাদের কিনতে হচ্ছে। ভোক্তা সাধারণের অথিকার অনুযায়ী বাজারজাত হতে হবে বিষমুক্ত, নির্ভেজাল খাদ্য। এর সাথে কৃষকের ন্যায্যমূল্য পরিশোধের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

বাংলাদেশ সরকার ভোক্তা অধিকার রক্ষায় নীতিগতভাবে একমত। এ বিষয়ে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সনদে স্বাক্ষরকারী দেশ। এখন প্রয়োজন ভোক্তা অধিকার আইন প্রণয়ন ও তার যথাযথ প্রয়োগ।

লেখক: প্রবীণ সাংবাদিক, সাবেক সভাপতি, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!