শ্যামনগরে তরমুজ চাষে সাফল্য পেলেও সেচ সংকটে বাড়ছে না আবাদ

রবিউল ইসলাম: সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়ী ইউনিয়নের খুটিকাটা বিলে এবারও তরমুজ চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন স্থানীয় চাষীরা। তবে, অতিরিক্ত লবণাক্ততার কারণে মারাত্মক সেচ সংকটে পড়েছেন তারা।

তাই তরমুজ চাষে সাফল্য পেলেও এর চাষাবাদের আওতা সম্প্রসারণ করা সম্ভব হচ্ছে না বলে মনে করছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, কাশিমাড়ী ইউনিয়নে চলতি মৌসুমে ১৫ হেক্টর জমিতে তরমুজ চাষ হয়েছে। আবাদকৃত বিগটপ, জাম্বু গ্লোরি ও ড্রাগন জাতের তরমুজের ফলনও ভাল। কিন্তু সেচ সংকটের কারণে দুশ্চিন্তায় পড়েছে চাষীরা।

সূত্র মতে, মিঠাপানির অভাবে চলতি মৌসুমে সিংহভাগ চাষযোগ্য জমিই পতিত রয়েছে। এলাকার হাতেগোনা কয়েকটি পুকুর ও ডোবা থেকে মিঠা পানি নিয়ে সামান্য কিছু অংশে চলতি মৌসুমে ধান ও তরমুজ চাষ করেছে চাষীরা। মিঠা পানির যোগান বাড়ানো, তথা সেচ সংকট দূর করা সম্ভব হলে তরমুজসহ অন্যান্য ফসলে ভরে উঠবে পতিত থাকা সব জমি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, তরমুজে ভরে রয়েছে চাষীদের ক্ষেত। এসব ক্ষেত থেকে তরমুজ বাজারজাত শুরু করেছেন তারা।

তবে, সেচ সংকটের পাশাপাশি তরমুজ বাজারজাতকরণ ও ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তি নিয়েও চাষীদের ক্ষোভ রয়েছে।

স্থানীয় তরমুজ চাষী নীলকণ্ঠ মন্ডল, কামাল হোসেন, পলাশ মন্ডল ও মুজিবর রহমান বলেন, গত মৌসুমের তুলনায় এবার তরমুজের ফলন অনেক বেশি। একটু দেরিতে চাষাবাদের কারণে তরমুজ বাজারজাত করতেও একটু দেরি হয়েছে। বাজারে এখন তরমুজের দাম বেশ ভাল। তবে আরও আগে উঠাতে পারলে দাম আরও বেশি পাওয়া যেত।

তারা আরও বলেন, তরমুজ চাষে বিঘাপ্রতি খরচ হয়েছে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা। বিঘাপ্রতি ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকার তরমুজ বিক্রির প্রত্যাশা রয়েছে। তবে, এখানে কৃষিকাজে সব চেয়ে বড় সমস্যা হল সেচ দেওয়ার জন্য মিষ্টি পানির অভাব। যদি মিষ্টি পানির ব্যবস্থা করা যায় তবে আগামীতে পতিত থাকা শত শত বিঘা জমিতে নানামুখী কৃষি কাজ করা সম্ভব হবে।

এসময় তারা তরমুজ চাষাবাদে শ্যামনগর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সার্বক্ষণিক তথ্য ও পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছে উল্লেখ করে বলেন, সরকারি কিংবা বেসরকারি কোন সংস্থা যদি ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনের ব্যবস্থা কিংবা খাল বা পুকুর খননের মাধ্যমে মিষ্টি পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা করে তাহলে স্থানীয় চাষীদের ভাগ্য খুলে যাবে।

এ ব্যাপারে কাশিমাড়ী ইউনিয়নের গোবিন্দপুর ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শামসুর রহমান বলেন, এখানে সবচেয়ে বড় সমস্যা হল সেচের জন্য মিষ্টি পানির অভাব। মিষ্টি পানির সরবরাহ বাড়াতে পারলে তরমুজের আবাদ আরও বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, প্রথমদিকে বৃষ্টি হওয়ার কারণে তরমুজ চাষ দেরি হয়ে গেছে। আবার বর্তমানে বৃষ্টি না হওয়ার কারণে ফলগুলো শুকিয়ে যাচ্ছে। সেচ সংকট দূর করতে না পারলে তরমুজ চাষের আওতা বাড়ানো সম্ভব হবে না। কিন্তু এখানে সর্বত্র লবণাক্ততার প্রকোপ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *