বুধবার , ৩ এপ্রিল ২০২৪ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

শ্যামনগরের ‘ডিজি ল্যাব’র ভুলে সংকটাপন্ন প্রসূতির জীবন!

প্রতিবেদক
the editors
এপ্রিল ৩, ২০২৪ ৯:০০ অপরাহ্ণ

সুলতান শাহাজান, শ্যামনগর: সাতক্ষীরার শ্যামনগরে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ভুলে শরীরে ভুল গ্রুপের রক্ত দেওয়ায় সদ্য সন্তান জন্ম দেওয়া এক মায়ের জীবন সংকটাপন্ন হয়ে পড়েছে। এ ঘটনার পর প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে পালিয়ে গেছেন অভিযুক্ত ডায়াগস্টিক সেন্টার ‘ডিজি ল্যাব’র কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এর প্রতিকার দাবি করে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকসহ স্বাস্থ্য বিভাগে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে ভুক্তভোগী নারীর পরিবার।

বর্তমানে শ্যামনগরের কদমতলা গ্রামের আঞ্জুয়ারা খাতুন (২৭) নামের ওই নারীকে উপজেলা সদরের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

আঞ্জুয়ারা খাতুনের ভাই বিলাল হোসেন জানান, গত ৩০ মার্চ মধ্য রাতে তার বোনের প্রসব বেদনা শুরু হলে শ্যামনগর সদরের মর্ডান ক্লিনিকে নেয়া হয়। একপর্যায়ে সিজারের সিদ্ধান্ত হলে রক্ত সংগ্রহের নির্দেশনা পেয়ে এক দালালের সহায়তায় তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন ডিজি ল্যাব নামীয় ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যোগাযোগ করেন। এসময় প্রতিষ্ঠানের মালিক মিজানুর রহমান নিজে নমুনা সংগ্রহ করে গ্রুপ নির্ণয়ের পর তা ‘এ’ পজেটিভ নিশ্চিত করে ডোনার খুঁজতে বলেন।

বিলাল হোসেনের অভিযোগ, ৩১ মার্চ ‘এ’ পজেটিভ রক্তের ডোনার নিয়ে ডিজি ল্যাবে যাওয়ার পর সংগৃহীত ও রোগীর রক্তের ‘ক্রস ম্যাচ’ শেষে তাদেরকে এক ব্যাগ রক্ত সরবরাহ করা হয়। একপর্যায়ে রক্ত পুশের পর নানা উপসর্গ দেখা দেয়ায় অপর একটি প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষা করা হলে আঞ্জুয়ারার রক্তের গ্রুপ ‘বি’ পজেটিভ বলে জানানো হয়। এসময় পুনরায় ডিজি ল্যাবে নিয়ে গ্রুপ নির্ণয়ের পর রক্তের গ্রুপ ‘বি’ পজেটিভ বলে তাদের নিশ্চিত করা হয়। তবে প্রথমবার ভুল রিপোর্ট দেয়ার কারণ জানতে চাইলে তারা বিষয়টি ‘ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ করেন।

তিনি আরও অভিযোগ করেন, যাবতীয় পরীক্ষা নিজে করলেও রিপোর্টে জনৈক রবিউল হাসান নামের একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের নাম ও স্বাক্ষর ব্যবহার করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী আঞ্জুয়ারা খাতুনের আরেক ভাই আব্দুল করিম জানান, ভিন্ন গ্রুপের রক্ত দেয়ার পর থেকে তার বোন নানান জটিলতায় ভুগছে। বিষয়টি জানাজানি হলে বুধবার সকালেই প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ করে মালিক ও কর্মচারীরা পালিয়ে গেছে। ভুল প্রতিবেদন দেয়া প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন জানিয়ে তারা জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনসহ শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

রিপোর্টে স্বাক্ষর ও সিল থাকা মেডিকেল টেকনোলজিস্ট রবিউল হাসান বলেন, তিনি দুই বছর আগে ডিজি ল্যাব থেকে চলে গেছেন। বেআইনীভাবে তার নাম ও সিল ব্যবহারের ঘটনায় তিনি আইনের দারস্থ হবেন।

এ ব্যাপারে ডিজি ল্যাবের মালিক পল্লী চিকিৎসক মিজানুর রহমান বলেন, প্রথম পরীক্ষা ভুল হয়েছে বলে তিনি রোগীর স্বজনদের কাছে মাফ চেয়েছেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রবিউল হাসানের পরামর্শে তার নাম ও সিল ব্যবহার করা হয়েছিল। তার ডায়াগনস্টিক সেন্টার এখনও অনুমোদন পায়নি বলেও তিনি স্বীকার করেন।

এবিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জিয়াউর রহমান বলেন, ভুক্তভোগী পরিবারের লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রোজার আগে এমন কয়েকটি নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, এমন অপতৎপরতা বন্ধে স্বাস্থ্য বিভাগ ছাড়াও অপরাপর প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা নেয়া জরুরী। #

৩.৪.২০২৪

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!