মঙ্গলবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

নতুন প্রজন্মের অন্তর্দৃষ্টি খুলে দেবে ‘সুভাষের সৌরভ’ || তানজির কচি

প্রতিবেদক
the editors
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩ ৯:৩১ অপরাহ্ণ

সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরী ছিলেন একজন বহুমাত্রিক লেখক। লেখালেখির মাধ্যমে সমৃদ্ধ করেছেন সাংবাদিকতাকে। সাংবাদিকতায় তার দৃপ্ত পদচারণা ও বিষয়ভিত্তিক বিশ্লেষণ নতুন প্রজন্মকে আলোর পথ দেখায়, ভাবতে শেখায়।

তিনি নিয়মিত প্রবন্ধ-নিবন্ধ-ফিচার-উপসম্পাদকীয় লিখতেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক ও বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশÑ তাঁর কলমের নিয়মিত স্বর ছিল। পাশাপাশি তাঁর কলমভাষা সবসময় সরব ছিল সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে। তিনি লিখতেন গণমানুষের পক্ষে।

গণমানুষের অধিকার, রাজনীতি-সমাজ-সংস্কৃতি, পরিবেশ-প্রকৃতি, গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতা, সামাজিক বৈষম্য, ব্যবসা-বাণিজ্য, লাভ-ক্ষতি, মানবতাÑ বলা যায় সব বিষয়ে তাঁর কলম ছিল সচল।

দৈনন্দিন প্রতিবেদনের পাশাপাশি ‘গণমাধ্যম’, ‘দৃশ্যপট’, ‘ব্যাঘ্রতটে’, ‘ধূসরতটে’, ‘কপোতাক্ষতট’, ‘স্মরণ’, ‘ভ্রমণ’সহ নানা শিরোনামে লিখতেন। এসব লেখায় সমাজ-সংস্কৃতি নিয়ে নিজের বিশ্লেষণ তুলে ধরতেন।

সাতক্ষীরার ইসলামপুর চরে লাঠিবাহিনীর সন্ত্রাস, যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের সাতক্ষীরা সফর, সাতক্ষীরা অঞ্চলে চরমপন্থীদের অরাজকতা, ফতোয়া, জামায়াতের কর্মকা-, সুন্দরবনের বন্যপ্রাণী শিকার ও বাঘের চামড়া পাচারসহ নানা বিষয়ে প্রয়াত সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরীর বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন পাঠক সমাজে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল।

একজন নিবেদিতপ্রাণ সাংবাদিক হিসেবে গণমাধ্যমের ক্রমবিকাশ, সংবাদ, সাংবাদিকতা, সীমাবদ্ধতা ও প্রতিশ্রুতির কথা তাঁর কলমে সোনা হয়ে ঝরতে দেখেছি। দেখেছি তাঁর কলমের আঁচড়ে অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের বর্তমান অবস্থা, সীমাবদ্ধতা, উত্তরণের পথও।

সুভাষ চৌধুরী কোথাও গেলে সেখানের ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে জনপ্রত্যাশার কথা তুলে ধরতেন নিজস্ব ভাব-ভাষায়।

ব্যক্তি জীবনে মানুষের সাথে আড্ডা দিতে পছন্দ করতেন তিনি। এই আড্ডার ছলে বের হয়ে আসা তথ্য-উপাত্ত নিয়ে অনুসন্ধান করতেন, লিখে ফেলতেন প্রতিবেদন কিংবা নিবন্ধ। তিনি যেমন সাতক্ষীরায় সত্তরের নির্বাচনী প্রচারণাকালে ভোলায় ঘটে যাওয়া ভয়াবহ সাইক্লোনের খবর পেয়ে বঙ্গবন্ধুর তাৎক্ষণিক নেওয়া পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেছেন, তেমনি কলারোয়ার মমতাজনগরে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে শুরু করে আবহমান বাংলার চিত্র, দেশব্যাপী ভাষা শহিদদের স্মরণে অমর একুশে উদযাপন, নারী-শিশু-হিজড়াদের অধিকার, প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের কর্মতৎপরতার পাশাপাশি সাতক্ষীরার শ্যামনগরের মিনা ইয়াসমিনের সংগ্রাম, সাংবাদিকদের উপর অত্যাচার-নিপীড়ন, করোনা মহামারীতে মৃত্যুবরণকারী হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের সৎকারে এগিয়ে এসে মুসলিম যুবাদের মানবতার জয়গান গাওয়া, ঐতিহাসিক যশোর রোডের বৃক্ষ নিধনে মানুষের আর্তনাদ, স্থানীয় রাজনীতিকদের মধ্যকার বিভাজন, জঙ্গিবাদের উৎস, মাদকাসক্তি বৃদ্ধি, চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নয়ন এমনকি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রভু সুলভ মনোভাবের কথা তুলে ধরেছেন।

তিনি লিখেছেনÑ দেশের প্রধানমন্ত্রীর কাছে একজন শিশুর চাওয়া-পাওয়া নিয়ে, লিখেছেন শিশু নির্যাতন নিয়ে। লিখতে ভোলেননি রাজনৈতিক নেতাদের ভুলে যাওয়া প্রতিশ্রুতি, আশ্বাস, অঙ্গীকার নিয়েও।

সুভাষ চৌধুরী নিজের লেখার মধ্যদিয়ে অসাম্প্রদায়িক চেতনার জয়গান গেয়েছেন বরাবর। তাই তো তিনি লিখেছেন : জীবন-মরণের প্রশ্নে কলকাতার হাসপাতালে ‘ধর্ম’ বাধা হতে পারেনি সামসাদ আর সঙ্গীতার কিডনি প্রতিস্থাপনে। সেখানে মানবতার জয় হয়েছে।

ভাষা আন্দোলন, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ, মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সবকিছুই বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে তার লেখায়।

তিনি যেমন লিখেছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানের প্রয়োজনে মরণোত্তর দেহদানে প্রতিবেশী দেশ ভারতের মানুষের নব উদ্দীপনার কথা। তেমনি তুলে ধরেছেন পশ্চিমবঙ্গের নাম পরিবর্তন করে ‘বাংলা’ রাখা হলে বিভ্রান্তি সৃষ্টির শংকার কথাও।

সুভাষ চৌধুরী ‘আত্মহত্যার কারণ’ নিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছেন এবং আত্মহত্যা প্রতিরোধে সম্ভাব্য করণীয় নিয়ে নিজস্ব মতামত প্রকাশ করেছেন। তুলে ধরেছেন পুরুষতান্ত্রিক সমাজে ‘নারীর’ অবস্থানের কথা।

বাংলাদেশের ইতিহাসে ‘আগস্ট’ যেন এক ভীতিকর মাসের নাম। ১৯৭৫ এর ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা, ২০০৪ সালের ২১শে আগস্ট বর্বোরচিত গ্রেনেড হামলা ও ২০০৫ সালের ১৭ই আগস্ট সিরিজ বোমা হামলার প্রতি ধিক্কার জানিয়ে সুভাষ চৌধুরী লিখেছেন ‘আর না আসুক সে আগস্ট’।

সুভাষ চৌধুরীর লেখায় বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের করুণ পরিণতির চিত্র, ইউপি নির্বাচন থেকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে হলফনামায় প্রার্থীদের কৌশলগত মিথ্যাচার, জনগণের কাছে দেওয়া মিথ্যা প্রতিশ্রুতি, স্থান-কাল-পাত্র ভেদে প্রার্থীদের চাকর-প্রভুর আচরণ, প্রতিবেশী দেশ ভারতের পঞ্চিমবঙ্গের সাথে বাংলাদেশের রাজনীতিকদের আচরণগত পার্থক্য, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা ও শিক্ষকদের দায়িত্বশীলতা, নিরাপদ খাদ্য ও ভোক্তা অধিকার, চাকরি নিয়ে ঘুষ বাণিজ্য, গরিব-দুঃখীদের বিচার পাওয়ার অধিকার নিয়ে বিচার বিভাগের উদ্যোগ এবং বাঙালির প্রাণের উৎসব নববর্ষের কথা।

বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিক, সাংবাদিক, চিকিৎসক, সমাজসেবক, সংগঠক, বীর মুক্তিযোদ্ধা…Ñমফস্বল জাতীয় আন্তর্জাতিকতার ভেদাভেদ না করেই সমাজ তথা দেশগঠনে তাদের বিশেষ অবদানের কথা তুলে ধরতেন সুভাষ চৌধুরী। তার লেখনীতে স্থান পেয়েছেন কালজয়ী আব্দুল গাফফার চৌধুরী, সত্তরের প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য ও দৈনিক পত্রদূত সম্পাদক শহিদ স. ম আলাউদ্দীন, প্রথিতযশা সাংবাদিক ও সম্পাদক গোলাম সারওয়ার, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী, সাতক্ষীরায় স্কাউট ও রেড ক্রিসেন্ট আন্দোলনের পুরোধা ব্যক্তিত্ব ও দৈনিক কাফেলা সম্পাদক আবদুল মোতালেব, সাংবাদিক অধ্যাপক তবিবুর রহমান, যশোরের সাহসী সাংবাদিক শামছুর রহমান কেবল, জাতীয় অধ্যাপক ডা. এম আর খান, চিত্রকর এমএ জলিল, ভূমিহীন নেত্রী শহিদ জায়েদা, সাপ্তাহিক দখিনায়ন সম্পাদক মুফতি আবদুর রহিম কচি, যশোরের সাংবাদিক ফখরে আলম, আমৃত্যু সংগ্রামী কাজী সাঈদ, সাংবাদিক শেখ আব্দুস সোবহান, সাংবাদিক শেখ আবদুস সাত্তার, সাংবাদিক অরুন ব্যানার্জী ও এ কে এম আনিছুর রহমানের কর্মযজ্ঞের কথা।

নিজের লেখনীতে সমাজ গঠনে এসব ব্যক্তিবর্গের বিশেষ অবদানের কথা তুলে ধরতে কার্পণ্য করতেন না তিনি। তাঁর লেখাগুলো ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবে।

গ্রন্থটি নতুন প্রজন্মের অন্তর্দৃষ্টি খুলে দিতে সহায়তা করবেÑপ্রতিটি বিষয় নিয়ে পক্ষপাতহীন বিশ্লেষণের ভাবনার শক্তি তৈরিতে। নিজ দায়িত্ব পালনের (গণমাধ্যমে) পাশাপাশিও যে লেখালেখির ‘বিশাল ক্ষেত্র’ রয়েছে তা ভাবতে শেখাবে।

প্রয়াত প্রথিতযশা সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরীর লেখা নিয়ে প্রকাশিত গ্রন্থ ‘সুভাষের সৌরভ’ এর মাধ্যমে তার কর্ম উদ্দীপনা ছড়িয়ে পড়বে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে।

‘সুভাষের সৌরভ’ বইটির লেখাগুলো থেকে অন্য এক সুভাষ চৌধুরীকে খুঁজে নিতে পারবে পাঠক- আমাদের বিশ্বাস।

লেখক: সম্পাদক, সুভাষের সৌরভ

 

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!