রবিবার , ৭ মে ২০২৩ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

সৌম্যকে যেভাবেই হোক বিশ্বকাপ স্কোয়াডে চান হাথুরু!

প্রতিবেদক
the editors
মে ৭, ২০২৩ ৯:০৫ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: আঙ্গুল গুনে আর ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টে হিসেব করলে এখনো চার-পাঁচ মাস বাকি। এ সময়ের মধ্যে বেশ কয়েকটি সিরিজ ও টুর্নামেন্ট আছে টাইগারদের। তাই বিশ্বকাপ স্কোয়াড চূড়ান্ত করার পর্যাপ্ত সময় ও সুযোগ আছে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টের হাতে।

তবে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কথা, ‘আমরা এশিয়া কাপেই দল সাজিয়ে ফেলবো। এশিয়া কাপের দলটিই হবে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলাদেশ স্কোয়াড।’

খেলা কোথায় হবে- পাকিস্তান, আরব আমিরাত না অন্য কেথাও, তা নিয়ে আছে সংশয়। ভারতীয় দল পাকিস্তানে যাবে না- জানিয়ে দিয়েছে আগেই। কাজেই এশিয়া কাপের স্বাগতিক দেশ নিয়ে সংশয় আছে পুরোদমে। তবে এশিয়া কাপ আয়োজনের সময়সূচি হলো সেপ্টেম্বর।

তার আগে ঘরের মাঠে আফগানিস্তানের বিপক্ষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ (জুন-জুলাই)। এরপর আগস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে আরও একটি ওয়ানডে সিরিজ হতে পারে। যদি হয় তাহলে এশিয়া কাপের আগে আর দুটি মাত্র ওয়ানডে সিরিজ আছে টাইগারদের।

কাজেই বাংলাদেশ ক্রিকেটের থিংকট্যাঙ্ক, টিম ম্যানেজমেন্ট ও নির্বাচকদের হাতে আছে ক্রিকেটার বাছাই এবং দল সাজানোর পর্যাপ্ত সময় এবং সুযোগ ।

দল কেমন হবে? কোন ১৫-১৬ স্বপ্ন সারথী বাংলাদেশের মানুষের স্বপ্ন বুকে ধারণ করে ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলতে যাবেন? তা নিয়ে ভক্ত, সমর্থক ও অনুরাগীদের উৎসাহ ও আগ্রহের কমতি নেই। অনেকেই আলোচনা-পর্যালোচনায় বসে গেছেন। নানা ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ চলছে দল নিয়ে। সম্ভাব্য দল নিয়ে বিশেষজ্ঞ মত ও পর্যালোচনাও হচ্ছে।

এত আগে মূলত টাইগারদের সম্ভাব্য বিশ্বকাপের রূপরেখা তৈরি করা কঠিন। কারণ যেহেতু আগে প্রচুর খেলা আছে। তাই টিম ম্যানেজমেন্ট ও নির্বাচকরাও সে সব সিরিজ, সফর এবং টুর্নামেন্টে দল নিয়ে কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষাও চালাবেন। যদিও কিছু পজিশন ও বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার নিশ্চিত। তারা অটোমেটিক চয়েজ হয়ে আছেন।

সেই সম্ভাব্য অটো চয়েজ এর তালিকা করতে গেলে গোটা দশেক নাম উঠে আসবে এমনিতেই। অধিনায়ক ও এক নম্বর ওপেনার তামিম ইকবাল। অপর ওপেনার লিটন দাস। ওয়ান ডাউন নাজমুল হোসেন শান্ত। চ্যাম্পিয়ন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, মিস্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিকুর রহিম এবং নিজেকে বেশ ভালভাবে মেলে ধরা ত্যৌহিদ হৃদয়ও ব্যাটার কোটায় প্রায় নিশ্চিত।

তাদের সাথে স্পিনিং অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজ এবং পেস বোলার কোটায় তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান ও এবাদত হোসেনও মোটামুটি কনফার্ম। ওপরে যাদের নাম বলা হলো কোনোরকম ইনজুরির শিকার না হলে এই ১০ জনের বিশ্বকাপ দলে না থাকার কোন কারণ নেই।

এখন দল যদি হয় ১৫ জনের হয়, তাহলে বাকি থাকলো আরও ৫ জন। আসলে তাদের নিয়েই যত কথা। তারা কারা? সেখানে আছে বেশ কিছু নাম- রনি তালুকদার, ইয়াসির আলী চৌধুরী রাব্বি, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, শরিফুল ইসলাম, হাসান মাহমুদ, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, সাইফউদ্দীন, নাসুম আহমেদ ও তাইজুল ইসলাম।

১৫ জনের মূল দল হলে এর মধ্যে থেকে ক্যাটাগরি ভেদে ৫ জনকে শেষ পর্যন্ত বিশ্বকাপ দলে দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি। এর মধ্যে টপ ও মিডল অর্ডার ব্যাটার হিসেবে অন্তত দু’জনার অন্তর্ভুক্তি ঘটবেই। ব্যাটারের সংখ্যা ৩ জনও হতে পারে। যদি তাই হয়, তাহলে পেসার ঢুকবেন আর মাত্র ১ জন এবং একজন স্পিনারের অন্তর্ভুক্তিও ঘটবে।

আর যদি টপ অর্ডারে একজন আর মিডল অর্ডারে একজন করে দুজন ব্যাটারকে শেষ পর্যন্ত বেছে নেয়া হয়, তাহলে মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী আর সাইফউদ্দীনের মধ্য থেকে যে কোনো একজনকে পেস বোলিং অলরাউন্ডার এবং বাঁ-হাতি শরিফুল ও ডানহাতি হাসান মাহমুদের যে কোন একজনের ভাগ্য খুলবে। আর দুই বাঁ-হাতি স্পিনার নাসুম ও তাইজুলের যে কোন একজন হতে পারেন ব্যাকআপ স্পিনার।

প্রিমিয়ার লিগে যত রানই করুন না কেন, ওপরে যাদের নাম বলা হলো, তারা কেউ সামনের দিনগুলোয় চরমভাবে ব্যর্থ না হলে কিংবা ইনজুরির শিকার হয়ে মাঠের বাইরে ছিটকে না পড়লে এর বাইরের কারো অন্তর্ভুক্তির সম্ভাবনা নেই। কারন, আর কেউ সেভাবে বিবেচনায় নেই।

ভক্ত ও সমর্থকরা হয়তো প্রিমিয়ার লিগে অনেক রান করা এনামুল হক বিজয়, নাইম শেখসহ আরও কয়েকজন ক্রিকেটারের কথা ভাবছেন। তাদের নিয়ে ভক্তরা যত উৎসাহই দেখান না কেন, ফেসবুকে একে-ওকে নিয়ে যাই লেখালেখি হোক, নির্বাচকদের সাথে কথা বলে এবং দল নিয়ে তাদের চিন্তা ভাবনা জেনে ও শুনে মনে হয়েছে ওপরে যাদের নাম বলা হলো সে অর্থে এর বাইরে আর কারো নাম এ মুহূর্তে মাথায় নেই টিম ম্যানেজমেন্ট ও নির্বাচকদের।

হ্যাঁ, সুপার লিগের এখনো তিনটি খেলা বাকি। দেখা গেল বিজয়, নাইম শেখ, নুরুল হাসান সোহান, জাকির হাসান ও জাকের আলী অনিকের কেউ একজন দুই তিনটি সেঞ্চুরি করে ফেললেন, তখন কি হবে? হ্যাঁ, তখন নিশ্চয়ই তার বা তাদের ওপর চোখ পড়বে টিম মানেজমেন্টের। হয়তোবা পরের সিরিজ বা সফরে তাদের ডাকও মিলবে। তারপর ভাল খেলার ওপর নির্ভর করবে বিশ্বকাপে খেলা বা না খেলা।

কিন্তু শুনে অবাক হবেন এর বাইরে আরও একজন আছেন, যিনি একদমই ফর্মে নেই। যার ব্যাটে রানও নেই; কিন্তু তারপরও তার নাম আছে। তার দিকে চোখ আছে খোদ হেড কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের।

বিসিবির উচ্চ পর্যায়ের অতি নির্ভরযোগ্য ও দায়িত্বশীল সূত্র নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানিয়েছেন, মোহামেডানের হয়ে খেলা সৌম্য সরকারকে বিশ্বকাপ দলে রাখতে চান হেড কোচ হাথুরুসিংহে। শুধু চানই না, সৌম্যর কথা হাথুরুর মাথায় সারাক্ষণ কাজ করে।

জানা গেছে, তিনি এরই মধ্যে বারকয়েক নির্বাচকদের কাছে সৌম্যর নাম প্রস্তাব করেছেন। বলেছেন, ‘কি ব্যাপার তোমরা সৌম্যকে ডাকছো না কেন? কোচের সে আহ্বানে সাড়া দেননি নির্বাচকরা। বরং তা নাকচ করে দিয়েছেন।

না দিয়ে উপায়ও বা কি? মোহামেডানের হয়ে গতবারের লিগে খারাপ খেলতে খেলতে এক পর্যায়ে বাদ পড়েছিলেন সৌম্য। এবারও সব ম্যাচ খেলতে পারেননি। রাউন্ড রবিন লিগ আর সুপার লিগ মিলিয়ে ১৪ খেলার তিনটিতে জায়গা হয়নি একাদশে। সর্বশেষ রোববারও গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের বিপক্ষে একাদশে রাখা হয়নি তাকে।

১১ ম্যাচ খেলে ১০ বার ব্যাট করে (১৬, ১, ১৭, ৪১, ৮, ৫৬, ১৩, ৯, ৮, ২২) সাকুল্যে রান করেছেন মোটে ১৯১। যাতে আছে একটি মাত্র ফিফটি অগ্রণী ব্যাংকের বিপক্ষে ৫৬, তাও প্রায় দ্বিগুন, ৯১ বলে। আর এক ম্যাচে করেছেন ৪১। বাকি ৮ ম্যাচে সৌম্যর ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ৯৪ রান এবং এর মধ্যে ৪ বার আউট হয়েছেন দশের নিচে।

সৌম্য ফর্মে নেই। তার ব্যাটে রান খরা। রান করতে ভুলে গেছেন, তা ওপরের পরিসংখ্যানেই পরিষ্কার এবং ঘরোয়া ক্রিকেটের পাশাপাশি জাতীয় দলেও পর্যাপ্ত সুযোগ পেয়ে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

নির্বাচকরা রীতিমত পরিসংখ্যান দিয়ে হেড কোচকে সৌম্যর ব্যাপারে নেতিবাচক কথা বললেও কোচ হাথুরুর মন গলেনি। তার মাথায় সৌম্য ভূত চেপে বসে আছে! তিনি এখনো ভেতরে ভেতরে সৌম্যর কথা ভাবছেন। তার দাবি, সৌম্যর ট্র্যাক রেকর্ড ভাল। সে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভাল খেলে। বড় মঞ্চে রান করার রেকর্ড আছে তার।

কিন্তু সৌম্য যে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে শেষ প্রায় দুই বছরে কিছুই করতে পারেননি, তার ব্যাট থেকে ২০১৯ সালের ৩১ জুলাই কলম্বোয় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৮৬ বলে ৬৯ রানের ইনিংসটিই সৌম্যর শেষ ওয়ানডে ফিফটি। এরপর গত ৪ বছরে সৌম্য ওয়ানডেই খেলেছেন ৬টি। যার ২ ম্যাচে আবার ব্যাট করেননি। বাকি ৪ ম্যাচে রান করেছেন (৭, ০, ৩২ , ১) ৪০।

এছাড়া জাতীয় দলের হয়ে শেষ ১৭ ম্যাচে তার ফিফটি মোটে দুটি। এসব জানা নেই হাথুরুর। সবকিছু শোনার পর খানিকটা চুপ মেরে গেছেন বাংলাদেশ কোচ। তারপরও নাকি নির্বাচকদের বলেছেন, তবুও সৌম্যর দিকে চোখ রাখ। যদি প্রিমিয়ার লিগে রান করে তাহলে তার কথা মাথায় রেখো। কারণ, জাতীয় দলের হয়ে তার ভাল কিছু ইনিংস আছে।

তা আছে বটে। তবে সেসব শুধুই ইতিহাস। তার আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি মাত্র ম্যাচ খেললেও ২০১৫ সালে এই ওয়ানডে বিশ্বকাপ দিয়েই জাতীয় দলের জার্সি গায়ে বড় মঞ্চে প্রথম সুযোগ পেয়েছিলেন সৌম্য। তখন এ বাঁ-হাতি টপ অর্ডার খেলতেন প্রাইম ব্যাংকে। বিশ্বকাপে আহামরি কিছু করতে না পারলেও সাবলীল ছিল তার ব্যাট।

তারপর এক বছর না যেতেই সৌম্যর ব্যাট হয়ে ওঠে খোলা তরবারি। পাকিস্তানের সাথে ঝোড়ো ও ম্যাচজয়ী সেঞ্চুরি (১১০ বলে ৬ ছক্কা ও ১৩ বাউন্ডারিতে ১২৭* ) আর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একজোড়া (৭৯ বলে ৮৮ ও ৭৫ বলে ৯০) ‘বিগ ফিফটিতে’ ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতে রীতিমত হইচই ফেলে দেন সৌম্য।

তখন বাংলাদেশের হেড কোচ হাথুরু। আর সৌম্যর সেই তেজোদ্দীপ্ত, সাবলীল, বাহারি স্ট্রোক প্লে‘র চিত্র এখনো হাথুরুর স্মৃতিতে ভাস্বর। তাই তিনি এবারও বিশ্বকাপে সৌম্যকে চান; কিন্তু সেই সৌম্য নেই, কোথায় হারিয়ে গেছেন। নিজেই নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন, তা বোধকরি জানেন না বাংলাদেশ কোচ। তবে তার তা জানা যে খুব দরকার!

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!