মঙ্গলবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২৪ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

একজন সমালোচকের চোখে পত্রদূত || তানজির কচি

প্রতিবেদক
the editors
জানুয়ারি ২৩, ২০২৪ ১:১২ অপরাহ্ণ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কারণে চারদিকে বিভ্রান্তিকর তথ্য-উপাত্ত-ছবি-ভিডিও’র ছড়াছড়ি। প্রকৃতপক্ষে গণমাধ্যম বলতে যে দায়িত্বশীল ‘প্রতিষ্ঠান’কে বোঝায় তা বিভ্রান্তিকর তথ্য-উপাত্তের বাজারে এখন বেশ চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি অবস্থান করছে। বর্তমান সময়কার গণমাধ্যমগুলো আসলে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কতটুকু সক্ষমতার পরিচয় দিচ্ছে সেটি একটি বড় প্রশ্ন। পাঠক-দর্শক-শ্রোতাদের অনেকেই এখন ভাইরাল বা ভিউ শব্দের সাথে বেশ পরিচিত। তারা এখন সংবাদের মধ্যেও বিনোদন খোঁজে। তাদের কাছে গঠনমূলক সংবাদের চেয়ে হাস্যকর (ফানি) সংবাদ বা ফানি উপস্থাপনার ভঙ্গি বেশ প্রিয় বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। তাই সমাজের জন্য ইতিবাচক ও কল্যাণকর সংবাদ তৈরি এবং তা দিয়ে পাঠক-দর্শক-শ্রোতার কাছে সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমের আস্থা অর্জন অন্যান্য সময়ের চেয়ে এখন বেশ কঠিন।

বরাবরই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে একটি গণমাধ্যমকে পাঠক-দর্শক-শ্রোতার আস্থা অর্জন করতে হয়। কিন্তু বর্তমান সময়কার গণমাধ্যমের চ্যালেঞ্জ অন্যান্য সময়ের চেয়ে ভিন্নতর। কিন্তু এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে গিয়ে গঠনমূলক সংবাদের পরিবর্তে দেশের শীর্ষ স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোও এখন ভাইরাল কনটেন্ট তৈরিতে ব্যস্ত। সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে গণমাধ্যমগুলোকে এখন মাল্টিমিডিয়ায় ঝুঁকতে হচ্ছে, এটা স্বাভাবিকও বটে। প্রকাশ মাধ্যম বা পদ্ধতির পরিবর্তন স্বাভাবিকভাবেই কাম্য। কিন্তু তা যদি গণমাধ্যমের ভূমিকা থেকে বিচ্যূত করে, তাহলে প্রশ্নবিদ্ধ হওয়াই স্বাভাবিক। তাই চ্যালেঞ্জটা একটু বেশি।

এতো কথার অবতারণা মূলত সাতক্ষীরার পাঠকপ্রিয় দৈনিক পত্রদূতের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে ঘিরে। মফঃস্বল শহর থেকে প্রকাশিত পত্রিকাটির সাথে আমার সম্পর্ক বেশ পুরোনো এবং ত্রিমাত্রিক- প্রথমত একজন পাঠক, একজন সাবেক সংবাদ কর্মী এবং একজন সমালোচক হিসেবে।

২০০৫ সালের মার্চে যখন ‘শিশু প্রকাশ’-এ শিশু সাংবাদিকতার মধ্যদিয়ে লেখালেখিতে হাতেখড়ি, তখন আমাদেরই প্রশিক্ষক শরীফুল্লাহ কায়সার সুমন পত্রদূতের মফঃস্বল সম্পাদক ছিলেন। সেই সুবাধে পত্রদূতে যাওয়া-আসা শুরু, চলছে এখনো। এক পর্যায়ে যখন আমি পত্রদূতের সহযোগী সম্পাদক, তখন বার্তা বিভাগের দায়িত্ব ছিল মূলত আমার হাতেই। সেসময় সর্বোচ্চ নিষ্ঠার সাথে বার্তা বিভাগে দায়িত্ব পালন করেছি। ২০১৪ সালের ৩০ জুন আমি যখন পত্রদূতের দায়িত্ব ছেড়েছি, তারপরও পত্রদূতের সাথে আমার সম্পর্ক ছিন্ন হয়নি। যখন যে অবস্থায় যেখানে যে দায়িত্ব পালন করেছি, সেখানে পত্রদূতকে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করেছি।

তবে, তখন সাংবাদিকদের মধ্যে বর্তমানে চর্চারতদের মতো ওতো সেলিব্রেটি ভাব ছিল না। লেখালেখি করেই সকলকে সাংবাদিক হতে হতো। কিন্তু এখন তো কিছু না করেও সাংবাদিক হওয়া যায়। আর এই কর্মক্ষেত্রে দুদিন থাকতে পারলে তো কোনো কথা নেই- বিশাল সেলিব্রেটি!

পত্রদূতের সাথে আমার যে ত্রিমাত্রিক সম্পর্ক তা এখনো বিদ্যমান। আমি যখন পত্রদূতের কর্মী ছিলাম, সর্বোচ্চ ইফোর্ট দিয়ে কাজ করেছি। আমি যখন পাঠক হিসেবে পত্রদূত পড়ি, গঠনমূলক সংবাদই প্রত্যাশা করি এবং একজন সমালোচক হিসেবে সমালোচনা করতেও দ্বিধা করি না। সেই সাথে আমার সমালোচনা, পাঠক হিসেবে প্রত্যাশা পত্রদূত কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করি।

পত্রদূত বরাবরই সাতক্ষীরায় সাংবাদিক তৈরির ‘প্রতিষ্ঠান’ হিসেবে কাজ করেছে। বরাবরই নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষের কথা বলেছে। অনিময়-দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাড়িয়েছে। ইতিবাচক সমাজ গঠনে কাজ করেছে। কিন্তু এখনকার আলোচনা পত্রদূত আসলে গণমাধ্যমের বর্তমান চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেকে কতটুকু প্রস্তুত করতে পেরেছে তা নিয়ে।

এই আলোচনার সাথে খুবই সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রশ্ন হলো- পত্রদূত পাঠকের আস্থা ধরে রাখতে পারছে কি না? পত্রদূত তার কর্মীদের দিয়ে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ তৈরি করাতে পারছে কি না? পত্রদূতের বার্তা ব্যবস্থাপনা পাঠকের ক্ষুধা কতটুকু মিটাতে পারছে?

এক্ষেত্রে আমার পর্যবেক্ষণ হলো পাঠকের ক্ষুধা নিবারণে পত্রদূত শেষ ঠিকানা। তবে, বার্তা ব্যবস্থাপনায় বেশ দুর্বলতা লক্ষ্যণীয়। এক্ষেত্রে আরও দায়িত্বশীল হওয়া স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যাশিত। এছাড়া সমাজের প্রত্যাশা পূরণে পত্রদূতের এখনো ঢের দিতে বাকী। এজন্য পত্রদূতের কর্মী বাহিনীকেও পরিবর্তিত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার উপযোগী হিসেবে গড়ে তোলার বিকল্প দেখছি না। কারণ সংবাদ কর্মীরা এখন খুব সহজেই প্রভাবিত হচ্ছেন। অনেকেই স্বার্থান্বেষী মহলের মনোবাসনা পূরণের হাতিয়ার হয়ে উঠছেন।

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদের পাশাপাশি এখন ভালো পাঠক-দর্শক-শ্রোতা তৈরির কাজ গণমাধ্যমকেই করতে হচ্ছে। এই ক্ষেত্রে ব্যর্থতার কারণে বিভ্রান্তিকর তথ্য-উপাত্ত-ছবি-ভিডিও’র প্রচারকারীরা হু হু করে এগিয়ে যাচ্ছে। এই বিভ্রান্তি রোধে প্রচলন ঘটেছে নতুন শব্দের ‘ফ্যাক্ট চেক’। প্রকৃতপক্ষে গণমাধ্যমের হাউজ কিপারদের দায়িত্বের মধ্যে অন্যতমই হলো ‘ফ্যাক্ট চেক’। কিন্তু ফ্যাক্ট চেকের ক্ষেত্রে আমাদের গণমাধ্যমগুলো বেশ পিছিয়ে যাচ্ছে। বস্তুনিষ্ঠতা নিশ্চিতে পত্রদূতের বার্তাবিভাগের ফ্যাক্ট চেক সেল আরও শক্তিশালী করতে হবে।

সীমাবদ্ধতা থাকবেই। এই সীমাবদ্ধকে অতিক্রম করেই আগামীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্ষমতার পরিচয় দেবে পত্রদূত, আরও শাণিত হবে পত্রদূতের লেখনী- এই প্রত্যাশায়…

লেখক: সাবেক সহযোগী সম্পাদক, দৈনিক পত্রদূত

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!