মঙ্গলবার , ৩০ জানুয়ারি ২০২৪ | ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

ভোমরা স্থলবন্দর ব্যবহারে ব্যবসায়ীদের অনীহা, কমেছে আমদানি

প্রতিবেদক
the editors
জানুয়ারি ৩০, ২০২৪ ৬:৪০ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে পণ্য আমদানি অর্ধেকে নেমে এসেছে। আগে বন্দর দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৪০০ থেকে ৪৫০ ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাক এলেও তা এখন কমে দাঁড়িয়েছে ২০০-এর নিচে। এ জন্য ব্যবসায়ীরা ডলারসংকট, বন্দরের অনুন্নত অবকাঠামো, ব্যবসায়ীদের হয়রানি ও দক্ষ নেতৃত্বের অভাবকে দূষছেন।

বর্তমানে বন্দরটিতে আমদানি ও রপ্তানি কাজে জড়িত রয়েছেন ৫ শতাধিক ব্যবসায়ী। আগে প্রতিদিন এই বন্দরে ৩ থেকে সাড়ে ৩ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হতো। বছর শেষে রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ছিল প্রায় ১ হাজার ১০০ কোটি টাকার মতো।

২০২২-২৩ অর্থবছরে বন্দরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ১ হাজার ২৬ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হলেও আমদানি কমে যাওয়াতে রাজস্ব আদায় হয় মাত্র ৬৩১ কোটি ৭০ লাখ টাকা। যে কারণে ২৩-২৪ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে ৮৫৩ কোটি ৯৯ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে আমদানি কমে যাওয়াতে এবারও রাজস্ব পূরণ হওয়া নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১৭ জানুয়ারি ভোমরা বন্দর দিয়ে ১৪৩টি, ১৮ জানুয়ারি ১৬৭, ২০ জানুয়ারি ১৪৯, ২১ জানুয়ারি ১৬৮, ২২ জানুয়ারি ১০৯, ২৩ জানুয়ারি ১৫৯ ও ২৪ জানুয়ারি ১৫৯টি ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশ করে।

সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ, হয়রানির কারণে এই বন্দর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া ডলারসংকটের কারণে ব্যাংকগুলো নিয়মিত এলসি (ঋণপত্র) দিতে পারছে না। আগে ১০ শতাংশ মার্জিনে ঋণপত্র খোলা যেত, এখন এলসি খুলতে হচ্ছে ১৫০ শতাংশ। আর টাকার মূল্যমান কমে যাওয়ায় এলসি খোলার সময় ডলার মূল্য ধরা হচ্ছে ১১৫ টাকা, অথচ বিল পাস হচ্ছে ১২৫ টাকার। এতে আমদানিকারকরা ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ায় ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি কমে যাচ্ছে।

ভোমরা স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী কবির হোসেন বলেন, ‘ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে ৭২ ধরনের পণ্য আমদানির অনুমোদন থাকলেও নিয়মিত পণ্য আমদানি হয় ২২টি। সেসব পণ্যের বেশির ভাগই কাঁচামাল ও ফল। তবে বিগত কয়েক মাস ধরে এই বন্দর দিয়ে কোনো ফল আমদানি হচ্ছে না। তা ছাড়া ভারত থেকে অন্য যেসব পণ্য আমদানি হয় সেগুলো ভোমরা বন্দরে পণ্য আসার পর বন্দর কর্তৃপক্ষ খালাস করতে গড়িমসি করে। খালাস করতে দেরি হওয়ায় কাঁচামালগুলো ট্রাকে পচতে শুরু করে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হন ব্যবসায়ীরা।’

বন্দরের অপর ব্যবসায়ী খান বাবু বলেন, ‘কাঁচামাল আমদানির ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা যে বন্দরে সুবিধা পাবেন সে বন্দরে পণ্য আমদানি করবেন। ভোমরা বন্দর দিয়ে পণ্য আমদানিতে কোনো ছাড় দেওয়া হয় না। তাই ভোমরা বন্দর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন।’

অবকাঠামো উন্নয়নের ধীরগতি ও বন্দরের কাস্টমস অফিস, শ্রমিক ইউনিয়ন, ব্যবসায়িক সংগঠন এই তিনটি বিভাগের সমন্বয়হীনতার কারণে ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি কমে যাওয়ার অন্যতম কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন ব্যবসায়ী রাজু হোসেন। বেনাপোলসহ অন্য বন্দরে ব্যবসায়ীদের যে পরিমাণ সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়, ভোমরা বন্দরে ব্যবসায়ীরা তুলনামূলক কোনো সুযোগ-সুবিধা পান না বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

আগে বেনাপোল বন্দর দিয়ে কাঁচামাল ও ফলমূল আমদানি হতো না। ব্যবসায়ীরা ভোমরা বন্দর দিয়ে আমদানি করতেন। বর্তমানে বেনাপোল বন্দর দিয়ে কাঁচামাল ও ফলমূল আমদানি হচ্ছে। ফলে ব্যবসায়িক সুবিধার্থে অনেক ব্যবসায়ী এখন বেনাপোল বন্দর দিয়ে পণ্য আমদানি করায় ভোমরা বন্দরের আমদানি কমেছে।

ভোমরা স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক আহ্বায়ক শেখ এজাজ আহমেদ স্বপন বলেন, ‘ভোমরা স্থলবন্দরের আমদানি কমে যাওয়ার পেছনে শুধু ডলারসংকট দায়ী না। দেশের অন্য বন্দরগুলোতে আমদানি ও রপ্তানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে। এখানের ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে তাদের সর্বস্ব হারান। এ জন্য অনেকে এই বন্দর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। যার প্রভাব পড়েছে আমদানি কার্যক্রমে।’

ডলারসংকট অনেকাংশে ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় পণ্য আমদানিতে প্রভাব ফেলেছে জানিয়ে ভোমরা স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ খান বলেন, ‘চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই বন্দরে ব্যবসা-বাণিজ্য খুব একটা ভালো যাচ্ছে না। ভোমরা বন্দর দিয়ে ব্যবসায়ীদের সব ধরনের পণ্য আমদানির অনুমোদন নেই। বর্তমানে এই বন্দর দিয়ে আমদানি করা পণ্যের চাহিদা দেশের বাজারে না থাকায় ব্যবসায়ীরা অন্য বন্দর দিয়ে ব্যবসা বাণিজ্য করছেন। তার ওপর ডলারসংকটসহ এলসি জটিলতা রয়েছে। আর এ সংক্রান্ত কারণে বন্দর দিয়ে ভারতীয় পণ্য আমদানি কমেছে।’

এ ব্যাপারে ভোমরা কাস্টমসের শুল্ক স্টেশনের দায়িত্বরত ডেপুটি কমিশনার মো. এনামুল হক জানান, পণ্য চাহিদার ওপর আমদানি কমবেশি হয়। ব্যবসায়ীরা যে পরিমাণ এলসি করবেন, তার বিপরীতে পণ্য আমদানি হয়। এখানে কাস্টমসের কোনো কিছু করার নেই।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!