সোমবার , ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

সাতক্ষীরা বক্ষব্যাধি ক্লিনিকে মেলে না সেবা, আসেন না চিকিৎসক!

প্রতিবেদক
the editors
এপ্রিল ১৫, ২০২৪ ৭:৫৫ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: চিকিৎসক ও দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনুপস্থিতির কারণে অচল হয়ে পড়েছে সাতক্ষীরা বক্ষব্যাধি ক্লিনিক। এতে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়াসহ বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন সেবা প্রার্থীরা। বহির্বিভাগ থেকে টিকিট কেটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেও চিকিৎসকের সাক্ষাত পাচ্ছেন না তারা। দূর দূরান্ত থেকে এসেও চিকিৎসা না নিয়েই ফিরে যেতে হচ্ছেন বাধ্য। কর্তৃপক্ষের নজরদারি না থাকায় এমনই অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে চলছে সাতক্ষীরার একমাত্র বক্ষব্যাধি ক্লিনিকটি।

সরেজমিনে সোমবার (১৫ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে সাতক্ষীরা পৌর সদরের পারকুখরালী মিয়া সাহেবের ডাঙ্গীতে অবস্থিত বক্ষব্যাধি ক্লিনিকে গিয়ে দেখা গেছে, বহির্বিভাগে রোগীদের টিকিট দিচ্ছেন ক্লিনিকের স্টাফ সিরাজুল ইসলাম। তখন ক্লিনিকে উপস্থিত ছিলেন সুপার আকলাক ও বৃষ্টি নামের একজন স্টাফ। উল্লিখিত তিন জন ব্যতীত ১১জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে অন্যদের দেখা মেলেনি।

অথচ বক্ষব্যাধি ক্লিনিকে চিকিৎসকের দায়িত্বে রয়েছেন ডা. সুব্রত গাইন, মেডিকেল অ্যাসিসটেন্ট হিসাবে রয়েছেন নাজনিন সুলতানা, ফার্মাসিস্ট নিভা মজুদার ও অফিস সহকারী বাপ্পাসহ মোট ১১জন। তখন সাংবাদিকের উপস্থিতির বিষয়টি বুঝতে পেরে একজন স্টাফ মোবাইলে কয়েকজনের কাছে ফোন করেন।

এর কিছুক্ষণ পরে এক্সরে টেকনেশিয়ান শেখ নোমান, ফার্মসিস্ট নিভা মজুদার ও হোম ভিজিটর জয়নাব ক্লিনিকে আসেন।

এক্সরে রুম বন্ধ কেন জানতে চাইলে টেকনেশিয়ান শেখ নোমান বলেন, আমি ক্লিনিকে এসে কি করবো, তিনমাসের বেশি সময় ধরে এক্সরে মেশিন নষ্ট হয়ে পড়ে আছে।

হোম ভিজিটর জয়নাব বলেন, আমি ক্লিনিকের সরকারি কোয়াটারে থাকি। সকালে একবার এসে কোয়াটারে চলে গিয়েছিলাম।

সরকারি কোয়াটারে থাকার অনুমতি কিভাবে পেলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্যারেরা বলেছেন তাই থাকি, আমরা লিখিত কোনো অনুমতি নেই। এছাড়া ক্লিনিকের বাউন্ডারির মধ্যে থাকা সব গাছগাছালি আমি দেখাশোনা করি। সেজন্য স্যারেরা আমাকে কোয়াটারের থাকার সুযোগ দিয়েছেন। বাগানের আম, কাঁঠাল, নারিকেল ও ডাব কি করেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি নিজে থেকে লোক দিয়ে পাড়িয়ে ক্লিনিকের স্টাফদের কিছু দেই ও বাকি সব ফলফলাদি ও ওষুধ সিভিল সার্জন অফিসের বড়বাবু আশিক নেওয়াজের বাসায় পাঠায়।

বক্ষব্যাধি ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা শহরের পলাশপোল এলাকার সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি সকাল ৯টার সময় এসে টিকিট কেটে বসে আছি। কিন্তু এখনো পর্যন্ত ডাক্তারের দেখা মেলেনি।

এসময় সিরাজুল ইসলামের মতো আরো ২০-২৫ রোগী টিকিট সংগ্রহ করে চিকিৎসকের অপেক্ষায় বসে ছিলেন। পরে ডাক্তার আসবে না জানতে পেরে দূরদূরান্ত থেকে আসা অনেক রোগী ফিরে যান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডা. সুব্রত গাইন ও মেডিকেল অ্যাসিসটেন্ট নাজনিন সুলতানা প্রায় সময়ই ক্লিনিকে অনুপস্থিত থাকেন। তাদের অনুপস্থিতির কারণে ক্লিনিকের অন্যান্য স্টাফরাও ঠিকমত দায়িত্ব পালন না করে মাস গেলে বেতন ভাতা তুলে নিয়ে যান।

এ বিষয়ে সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. শেখ সুফিয়ান রুস্তম এর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

 

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!