মঙ্গলবার , ২ জানুয়ারি ২০২৪ | ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. English
  2. অনুষ্ঠানসমূহ
  3. অর্থ বাণিজ্য
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্যারিয়ার
  7. খুলনা
  8. খেলা
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. পরিবেশ
  14. ফটো গ্যালারি
  15. বরিশাল

সৎ ও সাহসের দিশা আমাদের আনিসুর রহিম || মোঃ ইদ্রিস আলী

প্রতিবেদক
the editors
জানুয়ারি ২, ২০২৪ ৮:৪৩ অপরাহ্ণ

আমরা এখন অগ্রসর হতে চাই, সম্মুখের দিকে। চলতে চলতে অনেক, অনেক পথ পাড়ি দিতে চাই। এইপথ পাড়ি দেব কিসের আশায়? আশা না থাকলে পথ অতিক্রম করতে পারে না কেউ। এই সমাজ হলো শ্রেণি বিভক্ত সমাজ। এইসমাজের অভ্যন্তরে যে দ্বন্দ্ব আছে বিরোধ আছে সেই দ্বন্দ্ব বিরোধ কমানো বা নিরসনের চেষ্টা যারা করেন বা সংগ্রাম করেন, তারাই প্রগতিশীল মানুষ, তারাই জ্ঞান ভিত্তিক সমাজ নির্মাণের যোদ্ধা। আমাদের আনিসুর রহিম ছিলেন এমনই একজন প্রগতিশীল মানুষ, একজন জ্ঞান ভিত্তিক সমাজ নির্মাণের যোদ্ধা। মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্ত নিম্নবিত্ত বিভিন্ন ধারার মানুষের জীবন আচরণ ও চিন্তাপদ্ধতি ভিন্ন হয়। আনিসুর রহিম সেই ধারায় বিচরণ করে তরুণ বয়স পরিণত বয়স এবং শেষ বয়স মিলিয়ে সমাজ, রাষ্ট্র, জীবন জীবিকা নিয়ে ধাপে ধাপে চিন্তা সংগ্রামের চরিত্রে পরিবর্তন এনেছেন। তরুণ বয়সে বামপন্থী রাজনীতি, কমিউনিস্ট পার্টির রাজনৈতিক কর্মী, জীবন জীবিকায় শিক্ষকতা, সমাজকে আরও গভীর থেকে চেনার জন্য সাংবাদিকতা, সমাজের দুর্বৃত্ত শ্রেণির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের চেষ্টা, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত থাকা, ভূমিহীন জনগোষ্ঠীর আবাসন ও জীবন জীবিকা নিয়ে লড়াই, নাগরিক সমাজের পক্ষে কথা বলার জন্য বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের সাথে কথা বলা ও কর্মসূচি নির্ধারণ করা ছিল তার নিয়মিত কাজ। মানুষের চলনে বলনে ভঙ্গিমায় মানুষ আকৃষ্ট হয়, অনুপ্রাণিত হয়। মানুষের মধ্যে অন্য মানুষ জেগে ওঠে। কেউ কেউ জাগিয়ে দেন। এই জাগিয়ে দেওয়া, জাগিয়ে তোলা, মানুষের মনে তাড়না সৃষ্টি করার কাজটি তিনি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে করতে পারতেন। চিন্তায়, মননে তিনি ছিলেন খুবই স্পষ্টবাদী, খুবই সাহসী। আমি ও আমরা সমাজবদ্ধ জীব। সমাজে সমস্যা সংকট যেমন থাকে, সম্ভাবনাও থাকে। সংকট সৃষ্টির জন্য যেমন একদল লোক থাকে আবার সংকটের বিরোধী সম্ভাবনার পক্ষেও একদল লোক থাকে। আমাদের আনিসুর রহিমও সংকট নিরসন ও সম্ভাবনা সৃষ্টির কাজে জাতীয় বীর, অগ্রগতি সমৃদ্ধির দিকপাল। আমাদের এই সমাজ, এইদেশ এখন কিভাবে চলছে? সরকারের বিভিন্ন সেক্টরের কর্মকর্তা, কর্মচারীর মনোভাব প্রচ-ভাবে জনকল্যাণ বিরোধী।
সবাই যার যার ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব দেখিয়ে নিজে আর্থিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হতে চায়। সত্যের সাথে মিথ্যার মিল ঘটাতে চায়। বিজ্ঞান মনস্কতা, নীতি নৈতিকতা সমাজ প্রগতি নিয়ে যারা ভাবেন, কথা বলতে চান তারা এখন বড়ই একা হয়ে যাচ্ছেন।
সমাজে মুক্তবুদ্ধি চর্চাকারী জনতার সংকট দেখা যাচ্ছে। সবার মধ্যে একটা মধ্যবিত্ত সুলভ মানসিকতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আমরা সবাই মধ্যবিত্ত নই, তবুও আমরা নিজেদের মধ্যবিত্ত বলে মনে করি। শ্রমজীবী কর্মজীবী পেশাজীবী জনগোষ্ঠী ভিন্ন ভিন্ন চিন্তা দ্বারা আচ্ছন্ন। মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা ভেদে রুচি সংস্কৃতির পার্থক্য আছে। এই পার্থক্যকে বিবেচনায় নিয়ে সমাজ বদলের আন্দোলনে সক্রিয় থাকাই প্রগতি, জীবন চলার গতি। আমাদের আনিসুর রহিম কি প্রগতির পক্ষের মানুষ ছিলেন না? অবশ্যই তিনি প্রগতিবাদী ছিলেন। একজন প্রগতিশীল মানুষ সৃষ্টিশীল হন। তিনি তেমনই ছিলেন বলে উদীচীর মতো সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা ছিলেন। শিশুদের স্কুল গড়েছেন। দৈনিক পত্রিকা প্রকাশ করেছেন। করোনাকালে আর্থিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন। কোনো ভাবেই তিনি গতানুগতিক ধারার মানুষ ছিলেন না।
জ্ঞান বিজ্ঞান চিন্তা চেতনায় তিনি ছিলেন একেবারে সামনের সারির নেতা। শিক্ষক ছিলেন, শিক্ষক সমাজের অগ্রবর্তী চিন্তার পথিকৃৎ ছিলেন। সাংবাদিক ছিলেন, কিন্তু সমাজের দর্পণ হিসাবে অন্ধকারে বুক বিদীর্ণ করে আলো ছড়ানোর সৈনিক ছিলেন। তিনি শ্রমজীবী কর্মজীবী পেশাজীবী জনগণের অধিকার আদায়ের লড়াকু ছিলেন কিন্ত খুব সাহসী এবং দূরদৃষ্টি সম্পন্ন যোদ্ধা ছিলেন। মানুষ বাঁচে আশায়, সংগ্রামে যুদ্ধে। মরে যায় লোভে আপোষে হতাশায়। এখানে আনিসুর রহিম কোনপক্ষে? মানুষ মরেও বেঁচে থাকেন অনেক দিন। কর্ম, চিন্তা আদর্শে সংগ্রামে বেঁচে থাকা যায়। আমাদের আনিসুর রহিমও অনেক দিন বেঁচে থাকবেন। ‘সত্য যে বড় কঠিন, কঠিনেরে ভালোবাসিলাম। সে কখনো করে না বঞ্চনা’ এই বাণী দ্বারা আমরা উজ্জীবিত হতে চাই। মানুষের তরে কাজ করে একদিন যাব মরে। ‘তারপর মোরা ফিরিব এই মানব সমাদরে’ এই প্রত্যয় নিয়ে যে আনিসুর রহিম কাজ করেছেন আজীবন, সেই আনিসুর রহিমকে আমরা কি ভুলিতে পারি? এই সাতক্ষীরাকে, এইদেশকে এই সমাজকে আমরা অনেক দূর এগিয়ে নিতে চাই। এই জেলার তরুণ-তরুণীদের কর্মসংস্থানের জন্য কৃষিভিত্তিক শিল্পজোন, উচ্চশিক্ষিতদের সুযোগের জন্য একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, জলাবদ্ধতা মুক্ত সাতক্ষীরার জন্য পরিকল্পিতভাবে নদী খাল খননের দাবিতে আমাদের লড়াই করে যেতে হবে। সেখানে আনিসুর রহিমের দেখানো পথে যারা হাঁটতে চাই, তারা সম্মিলিতভাবে সমৃদ্ধ সাতক্ষীরা গড়ার যুদ্ধে সামিল হতে চাই। আনিসুর রহিম মানে সাহস, আনিসুর রহিম মানে অনুপ্রেরণা, আনিসুর রহিম মানে হার না মানা যোদ্ধা। আমরাও হারতে চাই না। জ্ঞান বিজ্ঞান চর্চার ক্ষেত্রে, শোষণ বৈষম্য বিরোধী আন্দোলনে, মৌলবাদ পশ্চাৎপদতার বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধ অবিরাম। এই যুদ্ধে আনিসুর রহিমসহ অতীতের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের দেখানো পথে অগ্রসর হয়ে জয়ী হতে চাই।

লেখক: সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ জাসদ, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি

সূত্র: স্মারকগ্রন্থ অনন্য আনিস

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ - জাতীয়

error: Content is protected !!